Menu

ইসলামিক বাংলা ব্লগ

in

সাহাবীদের সংখ্যা কত এ সম্পর্কে তথ্যবহুল আলোচনা

সাহাবীদের সংখ্যা সম্পর্কে সঠিক ধারণা পাওয়া কঠিন। আল্লাহ নবী হযরত মুহাম্মাদ (সা) এর অসংখ্য সাহাবী ছিলেন। যাদের সকলের হিসেব মিলানো আসলেই দুষ্কর। আমাদের আজকের আর্টিকেলে সাহাবীদের সংখ্যা নিয়ে কিছু তথ্য উপস্থাপন করা হল। আশা করি এতে পাঠকদের কিছুটা হলেও জ্ঞান পিপাসা মিঠবে।

যে ব্যক্তি জীবিত অবস্থায় হযরত মুহাম্মদ (সা.)- এর সাক্ষাৎ লাভ করেছেন; জীবনে একবার তাঁকে দেখেছেন; তাঁর হাতে ইসলাম গ্রহণ করেছেন এবং নবী মুহাম্মদুর রাসুলুল্লাহ্‌ ( সাঃ) -এর সাহচর্য লাভ করেছেন; অতঃপর ইসলামের প্রতি বিশ্বাস থাকা অবস্থায় (ইমানের সঙ্গে) মৃত্যুবরণ করেছেন তাঁকে ইসলামের পরিভাষায় নবী করিম (সাঃ)- এর সাহাবী (আরবি: الصحابة‎‎, “The Companions”) বলা হয়।  মনীষীদের জ্ঞানমূলক উক্তি পড়তে ভিজিট করুন

সাহাবীদের সংখ্যা যে কত তা সঠিকভাবে নির্ণয় করা যায় না। ইমাম আবু যারআ আর-রাযী বলেছেন, রাসূল (সাঃ) যখন ইন্তিকাল করেন, তখন যারা তাঁকে দেখেছেন এবং তাঁর কথা শুনেছেন এমন লোকের সংখ্যা নারী-পুরুষ মিলে এক লাখেরও ওপরে। তাঁদের প্রত্যেকেই রাসূলুল্লাহর (সাঃ) হাদীস বর্ণনা করেছেন। তাহলে যে সকল সাহাবী কোন হাদীস বর্ণনা করেননি তাঁদের সংখ্যা যে কত বিপুল তা সহজেই অনুমেয়। আবু যারআর একথার সর্মথন পাওয়া যায় বুখারী ও মুসলিমে বর্ণিত হযরত কা’ব ইবনে মালিকের একটি বক্তব্য দ্বারা। তিনি তাবুক অভিযান বর্ণনা প্রসঙ্গে বলেছেন, “মানুষের সংখ্যা অনেক। কোন দফতর বা দিওয়ান তা গণনা করতে পারবে না।” সাহাবীদের যথাযথ হিসেব কোনভাবেই সম্ভব নয়। কারণ, রাসূলুল্লাহর (সাঃ) জীবনের শেষ দিকে মানুষ দলে দলে ইসলাম গ্রহণ করে তাঁর হাতে বাইয়াত হন। কেউ কেউ বলেছেন, হিজরী দশম সনে মক্কা এবং তায়েফে একজনও অমুসলিম ছিল না। সকলে ইসলাম গ্রহণ করে বিদায় হজ্জে অংশ গ্রহণ করে। এমনিভাবে আরবের বহু গোত্র সম্পূর্ণরূপে মুসলমান হয়ে যান। তাদের অধিকাংশ ছিল মরুবাসী। তাদের হিসেব সংরক্ষণ করা কোনভাবেই সম্ভব ছিল না। তাছাড়া হযরত আবু বকরের (রাঃ) খিলাফতকালে ভন্ড নবী ও ধর্মদ্রোহীদের বিরুদ্ধে অভিযানকালে অসংখ্য সাহাবী শাহাদাত বরণ করেন। তাঁদের অনেকের পরিচয় ধরে রাখা সম্ভব হয়নি।

পরিশেষে, পাঠকবৃন্দ এই লেখা থেকে বিন্দুমাত্র উপকৃত হলে আমার কষ্ট সার্থক বলে মনে করবো। কোথাও কোন ভুল-ত্রুটি পরিলক্ষিত হলে তা আমার গোচরে আনার জন্য পাঠকদের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি। প্রকাশনার সাথে জড়িত ভাই কামারুল ইসলাম সহ সকলের প্রতি আমি কৃতজ্ঞা প্রকাশ করছি। আল্লাহ পাক আমার এ সামান্য শ্রমটুকু কবুল করুন। আমীন।

তেলেসমাতে হায়ওয়ানাত ১ম পর্ব পড়তে চাইলে ভিজিট করুন

Leave a Reply

Exit mobile version